নওরঙ | Indian pitta | Pitta brachyura

1504
নওরঙ | ছবি: ইন্টারনেট

এরা ভারি লাজুক পাখি। গলাটা মিষ্টি। গান শুনলে যে কারোরই ভালো লাগবে। হয়তো এমনও হতে পারে শ্রোতা ওদের গানে মজে গিয়ে খোঁজাখুঁজি শুরু করে দিয়েছেন। কিন্তু দেখা পাচ্ছেন না। হন্যে হয়ে খুঁজছেন, তারপরও বের করতে পারছে না ওর অবস্থান। কারণ এরা গাছের পাতার আড়ালে নিজেকে বন্দি করে রাখে কৌশলে।

এ পাখির বাংলা নাম অনেক। বর্ণালি, শুমচা, নীলপাখি ইত্যাদি। হিন্দি নাম নওরঙ। কোনো কোনো অঞ্চলে হালতি পাখি নামে পরিচিত। পশ্চিমবঙ্গের পক্ষীবিশারদ ‘অজয় হোম’ হিন্দি নামটার বাংলা করেছেন ‘বর্ণালি’। তবে এ দেশে ‘নওরঙ’ নামে বেশি পরিচিত। নওরঙের ইংরেজি নাম: ‘ইন্ডিয়ান পিট্টা,(Indian pitta)’ বৈজ্ঞানিক নাম: ‘পিট্টা ব্রাকাইউরা'(Pitta brachyura) গোত্রের নাম: ‘পিট্টিদি’।

লম্বায় নওরঙ ২০-২১ সেন্টিমিটার। লেজ একেবারেই খাটো। প্রথম দেখাতে মনে হবে বুঝি ওদের লেজই নেই। খুব ভালো করে পরখ করলে লেজটা ধরা পড়বে। ওদের পালকে রয়েছে লাল, সাদা, কালো, হলুদ, নীল, সবুজ ও বাদামি রঙের সংমিশ্রণ। মাথার ওপরটা হলদেটে পট্টির মতো। গলার নিচটা সাদা। চোখের দু’পাশ মোটা দাগের কাজল কালির টান দেওয়া। দাগটি একেবারে ঘাড়ে এসে ঠেকেছে। চোখের ওপর রয়েছে সরু সাদা টানা দাগ। পিঠ, কাঁধ সবুজ। ঠোঁট কালো। ডানার শুরুটা নীল, নিচের অংশ বাদামি। বুকের তলার দিকে লালচে বাদামি। লেজের নিচের পালক টুকটুকে লাল। পা ফিকে বেগুনি।

নওরঙ পাতাঝরা জঙ্গলের বাসিন্দা। মাটিতে বিচরণ করে সর্বদাই। মাটিতে পড়ে থাকা পাতা উল্টে-পাল্টে খাবারের সন্ধান করে। কেঁচো, পোকামাকড় প্রধান খাবার।মিষ্টি গলার নওরঙ শিস দেয় বেশ উচ্চস্বরে। ‘হুই হুইট-টিউ… টিউট টিউট টু…’ সুরে গান গায়। সুরে ছান্দসিক তাল আছে। পুরুষের তুলনায় স্ত্রী পাখি গানে বেশি পারদর্শী। গান গাওয়ার সময় মাথাটা ঘাড়ে ঠেকিয়ে আকাশমুখী হয়ে গান গায়। খুব বেশি উড়াল দিতে পারে না নওরঙ। থেমে থেমে ওড়ে।

প্রজনন মৌসুম আষাঢ় থেকে শ্রাবণ। নিচু গাছের ডালে বাসা বাঁধে। বাসা লম্বাটে ধাঁচের। ডিম পাড়ে ৪ থেকে ৬টি। ডিম ফুটতে সময় নেয় ১৪ থেকে ১৬ দিন। বাচ্চা উড়তে শেখে ২০ থেকে ২৫ দিনে। উড়তে শেখার আগেই বাচ্চারা মাটিতে নেমে মায়ের পেছন পেছন হাঁটাহাঁটি করে। সে মুহূর্তেই বাচ্চারা বিপদে পড়ে যায় বেশি।

লেখক: আলম শাইন। কথাসাহিত্যিক, কলামলেখক, বন্যপ্রাণী বিশারদ ও পরিবেশবিদ।
সূত্র: দৈনিক সমকাল, 01/06/2012

মন্তব্য করুন:

Please enter your comment!
Please enter your name here

Time limit is exhausted. Please reload the CAPTCHA.