লাল চোখের কালো শালিক | Asian glossy starling | Aplonis panayensis

2651
লাল চোখের কালো শালিক | ছবি: ইন্টারনেট

দেখতে কোকিলের মতোই। তবে অত বড়সড়ো নয়, আকারে কিছুটা খাটো। চোখ দু’টি কোকিলের মতোই টকটকে লাল। চেহারায় খানিকটা মিল থাকলেও এরা কোকিল প্রজাতির কেউ নয়। শালিক প্রজাতির পাখি। পোশাকি নাম কালো শালিক। পাখিটি সাধারণত ঝাঁক বেঁধে বিচরণ করে। জোড়ায় কিংবা একাকীও দেখা মেলে। হাঁটে লাফিয়ে লাফিয়ে। স্বভাবে কিছুটা লাজুক। ভাত শালিক বা ঝুঁটি শালিকের মতো বেহায়া নয়, তবে অস্থিরমতি। হিংস না হলেও নিজেদের ভেতর মাঝে মধ্যেই বিরোধ বাধে।

বাংলাদেশ ছাড়াও এদের বৈশ্বিক বিস্তৃতি ভারত, মিয়ানমার, ব্রুনাই, ইন্দোনেশিয়া, মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুর, থাইল্যান্ড ও ফিলিপাইন পর্যন্ত। প্রাকৃতিক আবাসস্থল ক্রান্তীয় ম্যানগ্রোভ অরণ্য। শহরাঞ্চলে পরিত্যক্ত দালান ও গাছ-গাছালিতে দেখা যায়। বিশ্বব্যাপী প্রজাতিটি হুমকির মুখে না থাকলেও দেশে এদের অবস্থা সন্তোষজনক নয়।

পাখিটির ইংরেজি নাম:‘এশিয়ান গ্লসি স্টার্লিং’(Asian glossy starling), বৈজ্ঞানিক নাম: Aplonis panayensis | এরা ‘তেলকাজলি’ নামেও পরিচিত। আবার অনেকের কাছে ‘এশীয় তেলশালিক’ নামে পরিচিত।

দেশে মোট ১২ প্রজাতির শালিক নজরে পড়ে। এর মধ্যে ৩টি পরিযায়ী। তবে কালো শালিক দেশের স্থায়ী বাসিন্দা। প্রজাতিটির দৈর্ঘ্য কমবেশি ২০ সেন্টিমিটার। ওজন ৫০-৬০ গ্রাম। স্ত্রী-পুরুষ দেখতে একই রকম হলেও যুবাদের রঙে হেরফের রয়েছে। কপাল মসৃণ নীলাভ কালো। ঘাড়, পিঠ, লেজ ও দেহতল সবুজাভ চকচকে কালো। ঠোঁট কালো। চোখ উজ্জ্বল লাল, পা ধূসর-কালচে।

এদের প্রধান খাবার: ছোট ফল, ফড়িং, ঝিঁঝিঁ পোকাসহ অন্যান্য পোকামাকড়। কালো শালিকের প্রজনন মৌসুম ফেব্রুয়ারি থেকে এপ্রিল। অঞ্চলভেদে প্রজনন মৌসুমের হেরফের লক্ষ্য করা যায়। এরা গাছের খোড়লে বাসা বাঁধে। উপকরণ হিসাবে ব্যবহার করে চিকন লতা, পালক, চুল, সূতা ইত্যাদি। ডিম পাড়ে ৪-৫টি। ডিম ফুটতে সময় লাগে ১২-১৪ দিন।

লেখক: আলম শাইন। কথাসাহিত্যিক, কলাম লেখক, বন্যপ্রাণী বিশারদ ও পরিবেশবিদ।
সূত্র: দৈনিক ইত্তেফাক, 24/10/2016

মন্তব্য করুন:

Please enter your comment!
Please enter your name here

Time limit is exhausted. Please reload the CAPTCHA.