পাকড়া মেঠো চিল | Pied Harrier | Circus melanoleucos

1089
পাকড়া মেঠো চিল | ছবি: ইন্টারনেট

পাখিটি পরিযায়ী। বিচরণ করে খোলা মাঠ, প্রান্তরে কিংবা তৃণভূমি অথবা নলখাগড়ার ঝোপের আশপাশে। এছাড়া ধানখেত, গমখেত, উম্মুক্ত বনভূমি, ছোট নদ-নদী ও জলাশয়ের আশপাশে বিচরণ করে। এরা খেত-খামারের উপর চক্কর দিয়ে শিকার খুঁজে বেড়ায়। দেখতে খানিকটা ভয়ঙ্কর হলেও চেহারাটা কিন্তু সুদর্শন। দেশে শীত মৌসুমে দেখা মেলে। উপমহাদেশীয় অঞ্চলে এরা মার্চ-এপ্রিল পর্যন্ত বিচরণ করে। বাংলাদেশ ছাড়া বৈশ্বিক বিস্তৃতি ভারত, শ্রীলঙ্কা, মিয়ানমার, চীন, ফিলিপাইন, সাইবেরিয়া ও মঙ্গোলিয়া পর্যন্ত। বিশ্বে এদের অবস্থা সন্তোষজনক নয়। মূলত শস্যখেতে ব্যাপক কীটনাশক ব্যবহারের কারণে প্রজাতিটি হুমকির মুখে পড়েছে এবং প্রজননে বিঘ্ন ঘটছে।

পাখিটির বাংলা নাম: ‘পাকড়া মেঠো চিল’, ইংরেজি নাম:‘পাইড হ্যারিয়ার’, (Pied Harrier) বৈজ্ঞানিক নাম: Circus melanoleucos | এরা ‘পাকড়া কাপাসি’ নামেও পরিচিত। অনেকে এদেরকে ‘রাখাল ভুলানি’ নামে ডাকে।

প্রজাতিটি দৈর্ঘ্যে ৪৩-৫০ সেন্টিমিটার। স্ত্রী-পুরুষ পাখির চেহারা ভিন্ন। পুরুষ পাখির ওজন ২৫৪-৩২৫ গ্রাম। স্ত্রী পাখির ওজন ৩৯০-৪৫৫ গ্রাম। প্রসারিত ডানা ১১০-১২৫ সেন্টিমিটার। পুরুষ পাখির মাথা, ঘাড় ও পিঠ নীলাভ কালো। ডানায় সাদা-কালো টান। লেজ সাদা হলেও ডানার কালো প্রান্তটা লেজের উপর এসে ঢেকে দিয়েছে। গলা ও বুক নীলাভ কালো। বুকের নিচ থেকে সাদা। গাঢ় কালো রঙে ঠোঁটের অগ্রভাগ বড়শির মতো বাঁকানো। ঠোঁটের গোড়া হলুদ। চোখ উজ্জ্বল হলুদ, মণি কালো। পা ও পায়ের পাতা কমলা হলুদ, নখ কালো। অপরদিকে স্ত্রী পাখি তত সুদর্শন নয়। ওদের উপরের দিক অন্ধকার বাদামি কালো। দেহতল বাদামি রঙের।

প্রধান খাবার: ছোট স্তন্যপায়ী প্রাণী, পাখি, ব্যাঙ, ইঁদুর, বড় পোকামাকড়, ফড়িং ও পঙ্গপাল। প্রজনন সময় গ্রীষ্মকাল। অঞ্চলভেদে প্রজনন মৌসুমের হেরফের দেখা যায়। বাসা বাঁধে ঝোঁপের ভেতর, জলাভূমির কাছে মাটিতে অথবা ঘেসো ভূমিতে লম্বা ঘাস বিছিয়ে। ডিম পাড়ে ৪-৫টি। ডিম ফুটতে সময় লাগে ২৮-৩০ দিন। শাবক ৩৫-৪৫ দিনের মধ্যে উড়তে শিখে।

লেখক: আলম শাইন। কথাসাহিত্যিক, কলাম লেখক, বন্যপ্রাণী বিশারদ ও পরিবেশবিদ।
সূত্র: দৈনিক ইত্তেফাক, 18/09/2016

মন্তব্য করুন:

Please enter your comment!
Please enter your name here

Time limit is exhausted. Please reload the CAPTCHA.