হলদে পা নাটাবটের | Yellow Legged Buttonquail | Turnix tanki

1717
হলদে পা নাটাবটের | ছবি: ইন্টারনেট

বিরল প্রজাতির আবাসিক পাখি। উনিশ শতকের দিকে চট্টগ্রাম বিভাগে দেখা গেছে। সম্প্রতি ঢাকা ও সিলেট বিভাগে দেখা যাওয়ার তথ্য রয়েছে। প্রজাতির বৈশ্বিক বিস্তৃতি ভারত, নেপাল, পাকিস্তান, ভুটান, মিয়ানমার, চীন, থাইল্যান্ড ও কোরিয়া পর্যন্ত।

হলদে পা নাটাবটের বিশ্বে বিপন্মুক্ত বাংলাদেশে অপ্রতুল তথ্য শ্রেণীতে রয়েছে। দেশের বন্যপ্রাণী আইনে এদের সংরক্ষিত ঘোষণা করা হয়নি। প্রজাতিটি স্বভাবে হিংসুটে নয়। স্বগোত্রীয়দের আগমনে বিরক্ত হয় না। সাধারণত জোড়ায় জোড়ায় তৃণভূমিতে বিচরণ করে। খুব সাবধানে হেঁটে বেড়ায়। প্রজননকালীন সময়ে হাঁকডাক বেড়ে যায়। এ সময় জোরে জোরে ডাকে ‘হু-ওন… হু-ওন…’ সুরে। প্রজাতিটি দেশের সর্বত্র যত্রতত্র দেখা না গেলেও খুলনা, বাগেরহাট, ফকিরহাট, যশোর, কুষ্টিয়ার আখমহালে দেখা মেলে।

পাখির বাংলা নাম: ‘হলদে পা নাটাবটের’, ইংরেজি নাম: ‘ইয়োলো লেগড বাটন কোয়েল’ (Yellow-legged Buttonquail), বৈজ্ঞানিক নাম: Turnix tanki | বাংলাদেশে তিন প্রজাতির নাটাবটের সাক্ষাৎ মেলে। যেমন দাগি নাটাবটের, হলদে পা নাটাবটের, ছোট নাটাবটের।

লম্বায় ১৫ সেন্টিমিটার। ওজন ৪০ গ্রাম। স্ত্রী-পুরুষ পাখির রং ভিন্ন। প্রজনন মৌসুমে পুরুষ পাখির রং বদলায়। এ সময় মাথার তালু পীতাভ ডোরাসহ কালচে দেখায়। পিঠ বাদামি-ধূসর। ডানার কোভার্ট পীতাভ। পিঠ, বুকের পাশ ও বগলে কালো চিতি। থুঁতনি ও গলা সাদাটে। অপরদিকে স্ত্রী পাখির ঘাড় লালচে। গলা ও ঘাড়ের পাশ এবং বুক লাল-কমলা। অপ্রাপ্তবয়স্ক স্ত্রী পাখির মাথার তালুতে পীতাভ ডোরা থাকে। তা ছাড়া ঘাড় থাকে লাল-ধূসর। লেজের গোড়ার দিকের পালক ধূসরাভ। উভয়ের চোখ সাদা। ঠোঁট, পা ও পায়ের পাতা হলুদ।

প্রধান খাবার: শস্যবীজ, পিঁপড়া ও পোকামাকড়। প্রজনন মৌসুম মার্চ থেকে নভেম্বর। ঝোপ-জঙ্গলের ভেতর মাটির ওপর ঘাস-লতা দিয়ে গম্বুজ আকৃতির বাসা বাঁধে। ডিম পাড়ে ৪টি। ডিম ফুটতে সময় লাগে ১২ দিন।

লেখক: আলম শাইন। কথাসাহিত্যিক, কলাম লেখক, বন্যপ্রাণী বিশারদ ও পরিবেশবিদ।
সূত্র: দৈনিক মানবকণ্ঠ, 20/02/2015