কালচে প্রিনা | Ashy Prinia | Prinia socialis

1817
| ছবি: ইন্টারনেট
কালচে প্রিনা | ছবি: ইন্টারনেট

গোবেচারা টাইপ চেহারা। স্লিম গড়ন। দেহের তুলনায় লেজ খানিকটা লম্বা। স্বভাবে ভারি চঞ্চল। গাছের চিকন ডালে লাফিয়ে বেড়ায়। সারাদিন ব্যস্ত সময় কাটায় ওড়াউড়ি করে। স্থিরতা এদের মাঝে খুবই কম। মন ভালো থাকলে উপরের দিকে ঠোঁট উঁচিয়ে ‘জিট-জিট-জিট’ সুরে গান গায়। সুর বেশ মধুর। শুনতে ইচ্ছে করে বারবার। বিভিন্ন সুরে গান গাইতে পারে। প্রজনন মৌসুমে জোড়ায় জোড়ায় থাকে। প্রজননের বাইরে ছোট দলে বিচরণ করে। বেশিরভাগই একাকী বিচরণ করে।

স্থানীয় প্রজাতির পাখি। সুলভ দর্শন। দেখা মেলে দেশের গ্রামাঞ্চলে, অনেক সময় শহরাঞ্চলেও দেখা মেলে। বিশেষ করে ঘাসবনে, জঙ্গলময় বাগানে এবং কৃষিজমিতে ওদের বিচরণ। বৈশ্বিক বিস্তৃতি বাংলাদেশ ছাড়া ভারত, নেপাল, ভুটান, শ্রীলঙ্কা ও পশ্চিম মিয়ানমার পর্যন্ত। হিমালয়ের পাদদেশে বিচরণ রয়েছে। সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ১৬০০ মিটার উঁচুতেও দেখা যাওয়ার তথ্য রয়েছে। দেশে এদের অবস্থান মোটামুটি সন্তোষজনক। বিশ্বব্যাপী এরা হুমকি নয়, ভালো অবস্থানেই রয়েছে। ভূমি থেকে কাছাকাছি বাসা বাঁধার কারণে অনেক সময় বিড়াল দ্বারা যথেষ্ট ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

পাখির বাংলা নাম: ‘কালচে প্রিনা’, ইংরেজি নাম: ‘এ্যাশি প্রিনা’, (Ashy Prinia), বৈজ্ঞানিক নাম: Prinia socialis |

এরা দৈর্ঘ্যে ১২-১৩ সেন্টিমিটার। ওজন ৬-৭ গ্রাম। স্ত্রী-পুরুষ পাখির চেহারা ভিন্ন। পুরুষ পাখির মাথা, ঘাড় ও পিঠ কালচে-ধূসর। ডানার পালক এবং লেজ বাদামি রঙের। লেজতলে রয়েছে কালচে ডোরা। গলা থেকে বুক ক্রিম-সাদা। পেটের দু’পাশ হালকা হলদেটে-সাদা। ঠোঁট কুচকুচে কালো, ঠোঁটের অগ্রভাগ সুচালো। চোখ বাদামি। পা ত্বক বর্ণের। অপরদিকে স্ত্রী পাখির মাথা, ঘাড়, পিঠ ধূসর বাদামি। দেহতল ফ্যাকাসে সাদা। ঠোঁট বাদামি-কালোর মিশ্রণ। মৌসুমি পালক ভিন্ন।

প্রধান খাবার: পোকামাকড়, মাকড়সা ও ফুলের মধু। প্রজনন সময় জুলাই থেকে সেপ্টেম্বর। এলাকাভেদে প্রজনন মৌসুমের হেরফের রয়েছে। বিশেষ করে বৃষ্টিপাতের সঙ্গে সঙ্গতি রেখে ডিম পাড়ে। বাসা বাঁধে ভূমি থেকে এক-দেড় মিটার উঁচুতে গাছের পাতা সেলাই করে মোচাকৃতির বাসা বাঁধে। ডিম পাড়ে ৩-৫টি। ডিম ফুটতে সময় লাগে ১২ দিন।

লেখক: আলম শাইন। কথাসাহিত্যিক, কলাম লেখক, বন্যপ্রাণী বিশারদ ও পরিবেশবিদ।
সূত্র: দৈনিক মানবকণ্ঠ, 13/05/2016