ভূমা পেঁচা | Dusky eagle owl | Bubo coromandus

2151
ভূমা পেঁচা | ছবি: ইন্টারনেট

স্থানীয় প্রজাতির পাখি। ভয়ঙ্কর দর্শন। হলুদ রঙের গোলাকার চোখ। গোলাকার শারীরিক গঠনও। দিনে গাছের বড় পাতার আড়ালে লুকিয়ে থাকে। কিছুটা লাজুক স্বভাবের বলা যায়। জনবসতি আছে এমন সব আমবাগানে অথবা তেঁতুল গাছে বিচরণ করে। বিচরণ করে জোড়ায় জোড়ায়। একজোড়া অনেক বছর যাবৎ একই গাছে বাসা বাঁধে। গাছের ডালে চোখ প্রসারিত করে চুপচাপ বসে থাকে। ওই অবস্থায় যে কেউ দেখলে ভয় পেতে পারেন। তার ওপর গুরুগম্ভীর সুরে ডেকে ওঠে, ‘দুঃখ দুঃখ দুঃখ’। যার ফলে পিলে চমকে ওঠে অনেকেরই।

আসলে ওরা একেবারেই নিরীহ প্রাণী। অন্যসব পেঁচাদের মতো এরাও মাথা ঘুরিয়ে ঘাড়ের ওপর নিয়ে ঠেকাতে পারে। শিকার সন্ধানে পদ্ধতিটি দারুণ কাজে দেয়। বৈশ্বিক বিস্তৃতি বাংলাদেশ ছাড়া ভারত, নেপাল, পাকিস্তান, মিয়ানমার, চীন ও থাইল্যান্ড পর্যন্ত। বিশ্বে প্রজাতিটির অবস্থান তত সন্তোষজনক নয়। আইইউসিএন এদেরকে উদ্বেগ প্রজাতি হিসেবে ঘোষণা করেছে।

পাখির বাংলা নাম: ‘ভূমা পেঁচা’, ইংরেজি নাম: ‘ডাস্কি ঈগল আউল’ (Dusky eagle-owl), বৈজ্ঞানিক নাম: Bubo coromandus | এরা ‘মেটে হুতোম পেঁচা’ নামেও পরিচিত।

এরা দৈর্ঘ্যে কমবেশি ৪৮-৫৩ সেন্টিমিটার। স্ত্রী-পুরুষ দেখতে একই রকম। মাথার দু’পাশে কান পশম রয়েছে, যা ঝুঁটি আকৃতির দেখায়। চোখের দু’পাশে কপালের ওপর সাদা-বাদামি টান। মুখমণ্ডল হলদে-বাদামি। দেহের উপরাংশ ফ্যাকাসে-ধূসর রঙের ছিট ছিট। দেহের নিচের দিকে হলদে-বাদামির ওপর টানা বাদামি-কালো রেখা। চোখের তারা হলুদ, মনি বাদামি। আসমানী ফ্যাকাসে ঠোঁট আকারে খাটো, নিচের দিকে বড়শির মতো বাঁকানো। পায়ের আঙুল ধূসর।

প্রধান খাবার: ছোট পাখি, ইঁদুর, টিকটিকি ইত্যাদি। প্রজনন মৌসুম এপ্রিল থেকে নভেম্বর। আবার অঞ্চলভেদে ডিসেম্বর থেকে জানুয়ারির মধ্যে প্রজনন ঘটে। এরা অন্যান্য পেঁচাদের মতো গাছের কোটরে অথবা দর-দালানের ফাঁকে বাসা বাঁধে না। বাসা বাঁধে জলাশয়ের কাছাকাছি বড় গাছের কাণ্ডে সরু ডালপালা দিয়ে। বাসা অগোছালো, শ্রীছাদ নেই। অনেকটা ঈগল বা চিলের বাসার মতো। ডিম পাড়ে ২-৩টি। ডিম ফুটতে সময় লাগে ২৩-২৫ দিন। শাবক শাবলম্বী হতে মাসখানেক লেগে যায়।

লেখক: আলম শাইন। কথাসাহিত্যিক, কলাম লেখক, বন্যপ্রাণী বিশারদ ও পরিবেশবিদ।
সূত্র: দৈনিক মানবকণ্ঠ, 22/04/2016