Home / দৈনিক মানবকণ্ঠ / তিলা মুনিয়া

তিলা মুনিয়া


ছবি: ইন্টারনেট

অতিপরিচিত পাখি এরা। দেখতেও বেশ সুন্দর। প্রকৃতিতে বিচরণের চেয়ে আজকাল ওদের বেশি দেখা যায় খাঁচায় বন্দি অবস্থায়। যে কোনো পাখির দোকানে গেলেই ওদের সাক্ষাৎ পাওয়া যায়। ‘কিরিটি চিরিটি চিট্টি-কিট্টি-কিটরি… কিচ কিচ’ সুরে ডাকাডাকি করে আকুতি জানায় মুক্ত আকাশে উড়ে বেড়াতে। কিন্তু দোকানির মন গলে না তাতে। সে বড়োজোর হাত বদল করতে রাজি, খাঁচার দরজা খুলে চিরতরে মুক্ত করে দিতে নারাজ। কারণ দোকানি এর পেছনে লগ্নি করেছে। পাখিশিকারিদের দাদন দিয়েছে; বিনিময়ে শিকারিরা দেশের গ্রামাঞ্চল, জলা-জঙ্গল কিংবা দুর্গম পাহাড়ি অঞ্চল থেকে ফাঁদ পেতে পাখি শিকার করে দোকানির কাছে সরবরাহ করে। সব ধরনের পাখিই তারা শিকার করে। এর মধ্যে এ পাখিই বেশি ওদের ফাঁদে পড়ে। এর অন্যতম কারণ এরা বাস করে দলবদ্ধভাবে। জালের ফাঁদ পাতলে প্রায় পুরো ঝাঁকই ধরা পড়ে যায়। খুব সহজেই ধরা পড়ে বিধায় এ পাখি মোটামুটি দামেও সস্তা। তাই ওদের প্রতি দোকানি এবং ক্রেতার আগ্রহ বরাবরই একটু বেশি থাকে।

উপরে উল্লিখিত পাখির বাংলা নাম: ‘তিলা মুনিয়া’। ইংরেজি নাম: “স্পটেড মুনিয়া”(Spotted munia), বৈজ্ঞানিক নাম: লনচুরা পাংকটুল্যাটা(Lonchura punctulata)। গোত্রের নাম পাসেরিদি। আমাদের দেশে যে ক’প্রজাতির মুনিয়া বেশি দেখা যায়, ওরা হচ্ছে কালোমাথা মুনিয়া, সাদাগলা মুনিয়া, সাদাপিঠ মুনিয়া, তিলা মুনিয়া ও লাল মুনিয়া। মুনিয়া প্রজাতির মধ্যে লাল মুনিয়াই সবচেয়ে বেশি সুন্দর।

তিলা মুনিয়া লম্বায় ১১-১২ সেন্টিমিটার। মাথা, চিবুক, গলা, ঘাড় কালচে বাদামি। পিঠ চকোলেট-পাটকিলে। বুক-পেট হালকা হলুদাভের ওপর কালো বৃত্তের ভেতর সাদা ছিট ছিট দাগ। তলপেটের দিকে ছিট বা কোনো ধরনের দাগ নেই। লেজের উপরের গোড়ার দিক হলুদাভ। তলার দিকটা সাদাটে। ত্রিকোণাকৃতির ঠোঁটটি নীলচে কালো। পা কালচে। স্ত্রী-পুরুষ দেখতে একই রকম। পাখিবিশারদ ছাড়া সর্বসাধারণের পক্ষে স্ত্রী-পুরুষ নির্ণয় করা কঠিন।
মুনিয়ারা মাটিতে নেমে হাঁটতে পারে না। চড়–ই পখির মতো লাফিয়ে লাফিয়ে হাঁটে। বাস করে দলবদ্ধভাবেÑগাছের ডালে বসে জোড়ায় জোড়ায়, গায়ের সঙ্গে গা মিলিয়ে। দৃশ্যটি দেখার মতো বটে।

সব ধরনের মুনিয়ার খাবার ধান, কাউন ও শস্যবীজ। এরা খোসা ছিলে শস্যদানা খায়।

প্রজনন সময় জুলাই থেকে অক্টোবর। কাঁটাঝোপ, কাশবন অথবা নল-খাগড়ার বনে এরা বাসা বাঁধতে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করে। শুকনো খড়, লতাপাতা বাসা তৈরির উপকরণ হিসেবে ব্যবহার করে। ডিমের সংখ্যা ৪-৬টি। তা দেয় স্ত্রী-পুরুষ মিলে। ডিম ফুটে বাচ্চা বের হতে সময় লাগে ১৪-১৭ দিন।

লেখক: আলম শাইন। কথাসাহিত্যিক, কলাম লেখক, বন্যপ্রাণী বিশারদ ও পরিবেশবিদ।
সূত্র: মানবকণ্ঠ, 19/10/2012

আরো পড়ুন