পাতি পাপিয়া | Common Cuckoo | Cuculus canorus

762

ছবি: ইন্টারনেট।

বিরল দর্শন পরিযায়ী পাখি। শুধুমাত্র গ্রীষ্মে পরিযায়ী হয়ে আসে বাংলাদেশে। মাঝে মধ্যে শরৎ এবং বসন্তকালে দেখা যাওয়ার নজির রয়েছে। সমগ্র দেশে দেখা না গেলেও ঢাকা, চট্টগ্রাম, খুলনা ও সিলেট বিভাগের বনাঞ্চলে দেখা যাওয়ার তথ্য রয়েছে। সাধারণত এরা চিরসবুজ বন অথবা আর্দ্র পাতাঝরা বনে বিচরণ করে। এছাড়াও পর্বতের পাদদেশে তৃণভূমিতে পোকামাকড় খুঁজে বেড়ায়। বনের গাছ-গাছালির উঁচু ডালে নিজেদের আড়াল করে রাখে। বেশিরভাগ সময় একাকী বিচরণ করে। ভোরে এবং গোধূলিলগ্নে কর্মচঞ্চলতা বেড়ে যায়। স্বভাবে কিছুটা লাজুক। প্রজনন মৌসুমে পুরুষ পাখির হাঁকডাক বেড়ে যায়। স্ত্রী পাখিকে আকৃষ্ট করতে ‘কুক-কু…কুক-কু..’ সুরে ডাকতে থাকে। স্ত্রী পাখি ডাকে সাড়া দেয় ‘হুয়িহুয়িহুয়ি..’ সুরে। বৈশ্বিক বিস্তৃতি ভারত (সমস্ত ভারতে বিচরণ রয়েছে) এশিয়া, আফ্রিকা ও ইউরোপ পর্যন্ত। বিশ্বে বিপদমুক্ত। বাংলাদেশে এদের অবস্থান মোটেও সন্তোষজনক নয়। বাংলাদেশের বন্যপ্রাণী আইনে প্রজাতিটি সংরক্ষিত।

পাখির বাংলা নাম: ‘পাতি পাপিয়া’, ইংরেজি নাম: ‘কমন কুক্কু’ (Common Cuckoo), বৈজ্ঞানিক নাম: Cuculus canorus | এরা ‘গায়ক কোকিল’ নামেও পরিচিত।

প্রজাতির দৈর্ঘ্য কম বেশি ৩৩ সেন্টিমিটার। ওজন ৯০ গ্রাম। স্ত্রী-পুরুষ পাখির চেহারা ভিন্ন। পুরুষ পাখির থুতনি, গলা ফ্যাকাশে ছাই রঙের। পিঠ ধূসর। বুক ফ্যাকাশে ছাই। পেট সাদা। লেজের নিচের কোর্ভাটের ওপর কালো সরু ডোরা। লেজ কালচে-বাদামি। লেজের প্রান্ত পালক সাদা। অপরদিকে স্ত্রী পাখির চেহারা দু’ধরনের। একটি কলিজা রঙের। পিঠ কালচে-বাদামি ডোরা এবং দেহতল কালচে ডোরা। অন্যটির চেহারায় ধূসর, বুকের নিচে লালচে। এছাড়া পুরুষ পাখির সঙ্গে তেমন কোনো পার্থক্য নেই। উভয়ের ঠোঁটের গোড়া হলদে এবং ডগা শিং-বাদামি। চোখ হলুদ। পা ও পায়ের পাতা কমলা-হলুদ। অপ্রাপ্তবয়স্কদের ঘাড়ের পেছন দিকে সাদা চিতি এবং পালকে সাদা পাড়।

প্রধান খাবার লোমশ শুঁয়োপোকা ও অন্যান্য পোকামাকড়। প্রজনন মৌসুম মার্চ থেকে সেপ্টেম্বর। হিমালয় ও সাইবেরিয়াঞ্চলে ডিম পাড়ে। নিজেরা বাসা বাঁধতে জানে না। ডিম পাড়ে তুলিকা, খঞ্জন, জাড়ফিদ্দা ও চটকের বাসায়। পালক মাতাদের অগোচরে মিনিট খানেকের মধ্যেই ডিম পেড়ে পালিয়ে যায়। সবচেয়ে মজার বিষয় হচ্ছে এরা খুব সহজে পালক মাতার ডিমের সঙ্গে নিজেদের ডিমের রঙ মিলিয়ে পাড়তে পারে।

লেখক: আলম শাইন। কথাসাহিত্যিক, কলাম লেখক, বন্যপ্রাণী বিশারদ ও পরিবেশবিদ।
সূত্র: দৈনিক মানবকণ্ঠ, 15/05/2015

আরো পড়ুন