গগনবেড়

123


ছবি: ইন্টারনেট

দেশে খুব কমই দেখা মেলে এ পাখির। বলা যায় অতিবিরল প্রজাতির বৃহৎ জলচর পাখি এরা। সুন্দরবনসহ দেশের বিভিন্ন নদনদীতে তিনযুগ আগেও দেখা যেত। হালে খুব একটা দেখা যায় না। নব্বই দশকের শেষাবধি ঢাকা চিড়িয়াখানার লেকে মাত্র ৩টি পাখির দেখা মিলেছে। ওখানে মাসখানেক কাটিয়েছে ওরা। বিদায় হয়ে আর ঢাকামুখী হয়নি পাখিগুলো। অতঃপর দেখা গেছে ২০০০ সালের দিকে দিনাজপুরের কাহারোল বিলে। সেখানে সংখ্যায় ছিল মাত্র একটি। স্থানীয় লোকজন পাখিটিকে ধরে রামসাগর দীঘির অভয়ারণ্যে নিরাপদে রাখলেও কিছুদিন পর সেটি মারা যায়। এতদাঞ্চলে এ প্রজাতির পাখির সাক্ষাৎ পাওয়ার আর রেকর্ড নেই। বছর আটেক আগে পরিচিত একজন পর্যটক জানিয়েছেন, তিনি নাকি দুটি পাখি সুন্দরবনের শাখা নদীতে বিচরণরত দেখেছেন। ওদের সন্ধানে সেখানে গেলে নিরাশ হয়ে ফিরে আসি আমরা।
উল্লেখ্য, ইতিপূর্বে ১৯৯৬ সালের জানুয়ারিতে সুন্দরবন গিয়ে ব্যাপক তল্লাশি চালিয়েও আমরা সফল হয়নি। তবে এদের সাক্ষাৎ আমি সুন্দরবনে না পেলেও পেয়েছি ঢাকা চিড়িয়াখানার লেকেই। পাখিগুলো দেখে সেদিন ভীষণ মুগ্ধ হয়েছি। দেখতে ভারি সুন্দর, আকারেও বৃহৎ। শরীরের মাংসের আধিক্যের কারণে বেঁচে থাকতে অন্তরায় হয়ে দাঁড়িয়েছে। মূলত মাংসের লোভেই শিকারিরা এদের শিকার করে অস্তিত্বের সংকটে ফেলে দিয়েছে। এ ছাড়া জলাশয় সংকটের কারণেও এরা আজ হারিয়ে যেতে বসেছে।

সুুন্দর এ পাখিদের বাংলা নাম : ‘গগনবেড়’, ইংরেজি নাম :‘গ্রেট হোয়াইট পেলিক্যান’ (great white pelican), বৈজ্ঞানিক নাম : ‘(Pelecanus onocrotalus)।

গগনবেড় লম্বায় প্রায় ১৮৩ সেন্টিমিটার। গায়ের বর্ণ দুধ সাদা হলেও ডানার ওপরে রয়েছে গোলাপি আভা। বুক ও পেটের দিকে হলদেটে। ওড়ার পালক কালো। ঠোঁট বেশ বড়। ঠোঁটের নিচে রয়েছে চামড়ার থলে। থলের রঙ কমলা-হলুদ। ওপরের ঠোঁটের মধ্যে রয়েছে লম্বা প্লেট। নিচের ঠোঁটের কিনারা ধূসর। চোখের চারপাশে পালকহীন চামড়া। পা ও পায়ের পাতা গোলাপি। কপালে রয়েছে সাদা পালক, যা ওপরের ঠোঁটের গোড়ায় মিলিত হয়েছে। মাথায় রয়েছে সাদা ঝুঁটি। প্রজনন সময় কেটে গেলে গলার নিচের থলের বর্ণ বদলে হলুদাভ বা কমলা রঙ ধারণ করে। ওই সময় মাথার ঝুঁটির পালক ও গায়ে হলুদের আভা থাকে না। অপ্রাপ্ত বয়স্ক পাখিদের ডানায় কালো এবং বাদামির পরিমাণ বেশি থাকে, আর ঠোঁট থাকে কালচে হলুদ।

গগনবেড়ের প্রধান খাদ্য মাছ। এদের মাছ শিকারের কৌশল বেশ মজাদার। এরা দলবদ্ধ হয়ে ঠোঁট ফাঁক করে মাছদের তাড়া করে নিজেদের থলেতে ঢুকিয়ে ঝাঁকুনি দিয়ে গিলে ফেলে।

প্রজনন সময় এপ্রিল থেকে মে। বড় গাছে দলবদ্ধভাবে বাসা বাঁধে। বাসা বানাতে উপকরণ হিসেবে ব্যবহার করে চিকন ডালপালা। বাসার শ্রীরিছাদ নেই। অগোছালো। চিল বা বাজপাখির বাসার মতো। ডিম পাড়ে ৩-৪টি। ডিম ফুটতে সময় লাগে ২৯-৩৬ দিন। শাবক স্বাবলম্বী হতে সময় নেয় ৬৫-৭৫ দিন। পূর্ণ যৌবনপ্রাপ্ত হতে সময় লাগে ৩-৪ বছর।

লেখক: আলম শাইন। কথাসাহিত্যিক, কলাম লেখক, বন্যপ্রাণী বিশারদ ও পরিবেশবিদ।
সূত্র: মানবকণ্ঠ, 22/03/2013

আরো পড়ুন