হলদেতলা ফুলঝুরি | Yellow-vented Flowerpecker | Dicaeum chrysorrheum

632

ছবি: ইন্টারনেট।

এ পাখির বাংলা নাম: ‘হলদেতলা ফুলঝুরি’ | ইংরেজি নাম: ‘ইয়েলো-ভ্যানটেড ফ্লাওয়ারপেকার’ (Yellow-vented Flowerpecker) | বৈজ্ঞানিক নাম: Dicaeum chrysorrheum | এরা ‘হলুদ-অবসারণী ফুলঝুরি’ নামেও পরিচিত।

এরা আবাসিক পাখি। স্বভাবে চঞ্চল। এই আছে এই নেই, চোখের পলকেই হারিয়ে যায়। বেশির ভাগ একাকী বিচরণ করলেও প্রজনন মৌসুমে জোড়ায় দেখা যায়। পুরুষ পাখি মিষ্টি সুরে গান গায় তখন। বৈশ্বিক বিস্তৃতি বাংলাদেশ, ভারত, নেপাল, ভুটান, মিয়ানমার, লাওস, সিঙ্গাপুর, থাইল্যান্ড, ভিয়েতনাম, কম্বোডিয়া, চীন, ব্রুনাই, ইন্দোনেশিয়া ও মালয়েশিয়া পর্যন্ত।

প্রাকৃতিক আবাসস্থল গ্রীষ্মমণ্ডলীয় আর্দ্র নিম্নভূমির বন। এ ছাড়াও গ্রীষ্মমণ্ডলীয় আর্দ্র পার্বত্য অরণ্যেও দেখা মেলে। বিশ্বব্যাপী সুলভ দর্শন হলেও বাংলাদেশ, নেপাল, ভুটান ও মিয়ানমারে বিরল দর্শন। এদের দৈর্ঘ্য কমবেশি ৯-১০ সেন্টিমিটার। স্ত্রী পাখি আকারে সামান্য খাটো। উভয়ের কপাল, ঘাড়, পিঠ জলপাই সবুজ। ডানার প্রান্ত পালক কালচে। গলা থেকে পেট পর্যন্ত হলদে সাদার সঙ্গে বাদামি ডোরাকাটা। লেজতল হলদে। ঠোঁট কালচে, চোখের বলয় লাল। পা কালচে।

এদের প্রধান খাবার ফুলের মধু, ছোট ফল ও পোকামাকড়। প্রজনন মৌসুম উপমহাদেশীয় অঞ্চলে এপ্রিল-আগস্ট। অঞ্চলভেদে প্রজনন মৌসুমের হেরফের রয়েছে। ভূমি থেকে দুই-আড়াই মিটার উঁচুতে গাছের ডালে অথবা গুল্মলতা আচ্ছাদিত ঝোপে ঝুলন্ত থলে আকৃতির বাসা বাঁধে। উপকরণ হিসেবে ব্যবহার করে গাছের নরম তন্তু, তুলা, শ্যাওলা ইত্যাদি। ডিম পাড়ে ২-৩টি। ডিম ফুটতে সময় লাগে ১৪-১৫ দিন।

লেখক: আলম শাইন। কথাসাহিত্যিক, কলামলেখক, বন্যপ্রাণী বিশারদ ও পরিবেশবিদ।
সূত্র: বাংলাদেশ প্রতিদিন, 01/07/2017

আরো পড়ুন